[ আমরা সম্মিলিত অনুশীলনের ভিত্তিতে, মানুষ ও মনুষ্যত্বের মুক্তিতে, মানবীয় মর্যাদা প্রতিষ্ঠার মহতী সংগ্রামে- আমাদের আদর্শিক সত্তা ও সমন্বয়ক দিশারী শ্রদ্ধেয় ‘বড়দা (আব্দুর রাজ্জাক মুল্লাহ রাজু শিকদার)’র নির্দেশিত পথই- সংগঠন ও সংগঠন কাঠামোর ক্ষেত্রে মতাদর্শিক দিশা হিসেবে গৃহীত; সেই আলোকেই অত্র প্রকাশনা অনুমোদিত। ]



মেনু

কহতব্য

 

শুভ বড়দিন। যীশু খ্রিস্টের জন্মোৎসবে সবাইকে বড়দিনের শুভেচ্ছা।


পবিত্রবাক্য এবং তা ধারণ প্রসঙ্গে যীশু খ্রিস্ট বলেন- দেখ, বীজবাপক বীজ বুনতেন। বোনার সময় কিছু বীজ পথের পাশে পড়ল, যা পাখিতে খেয়ে ফেলল। আর কিছু বীজ পাথরে পড়ল, যেখানে মাটি না থাকাতে তাড়াতাড়ি তা অঙ্কুরিত হলেও সূর্য উঠলে তা পুড়ে গেল। আর কিছু বীজ কাঁটাবনে পড়ল যা কাঁটা গাছ চেপে রাখল এবং কিছু বীজ ভালো জমিতে পড়ল ও ফল দিতে লাগল, কোনটা শত গুণ, কোনটা ষাট গুণ, কোনটা ত্রিশ গুণ। যার কান থাকে সে শুনুক।

 

এই জগৎ সংসারে তোমাদের মধ্যে কেউ কেউ পবিত্রবাক্য শোনে কিন্তু ঠিকমতো বোঝে না তাই তাদের অবস্থা হয়ে দাঁড়ায় পথের পাশে পড়া ঐ বীজের মতো- পাপাত্মা যাদেরকে ছোঁ মেরে নিয়ে যায়। আর কেউ কেউ এমন আছে, যারা বাক্য শোনে ও আনন্দ মনে গ্রহণ করে কিন্তু অন্তরে তার শেকড় গভীর না থাকায় তাদের অবস্থা হয় অনেকটা পাথরে পড়া বীজের মতো, কোনো স্থিরতা নাই, বিপদ আসলে তা পরিত্যাগ করে। আর কেউ কেউ সে বাক্য শোনে কিন্তু সংসারের চিন্তায় তা দমিত থাকে ফলে তা হয় কাঁটাবনে পড়া বীজের মতো নিস্ফল। অতঃপর কেউ কেউ এমন আছে যাঁরা বাক্য শোনে ও হৃদয়াঙ্গম করে এবং অবশ্যই তা বহন করে এগিয়ে নিয়ে যায়, তাঁদের অবস্থা ভালো জমিতে পড়া ঐ বীজের মতো যা সর্বদা ফলদায়ক কোনটা শত গুণ, কোনটা ষাট গুণ, কোনটা ত্রিশ গুণ। তারাই শোনে যাদের কান আছে। মথি ১৩: ৪-৯, ১৮-২৩। পবিত্র বাইবেলের আলোকে।

 

পুনশ্চঃ শুভ বড়দিন। সবার প্রতি শান্তি বর্ষিত হোক।



ক্রমিক
শিরোনাম
তারিখ
১০
নতুন সূর্যোদয়- সুস্বাগতম ২০২০ খ্রিস্টাব্দ! ২০২০-০১-০১
শুভ বড়দিন। যীশু খ্রিস্টের জন্মোৎসবে সবাইকে বড়দিনের শুভেচ্ছা। ২০১৯-১২-২৫
বিজয়ের এই মহান দিনে পৃথিবীর সব মানুষকে শুভেচ্ছা ২০১৯-১২-১৬
অবিলম্বে “১৪ই ডিসেম্বর, শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসকে রাষ্ট্রীয় ছুটি ঘোষণা করতে হবে”। ২০১৯-১২-১৪
-- ২০১৯-১২-০৫
-- ২০১৯-১১-২৪
নির্বাচন কেন্দ্রিক সংকট সমাধানে জাতীয় ঐক্যের প্রয়োজন ও প্রাসঙ্গিকতা ২০১৯-১০-১৮
দেশ ও মানুষের প্রশ্নে সবাই অভিন্ন বলেই গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে যা সঠিক তা সবার। আর সঠিকতা আধুনিক রাজনীতিতে সর্বদা যুক্তিযুক্ততায় নির্দিষ্ট হয়। বিশ্বাসের পথ ধরে ব্যক্তি সম্পর্ক এলেও- যুক্তির পথ ধরে বিশ্বাস ও ঐক্য স্থাপনের নামই গণতান্ত্রিক সহমত বা সংস্কৃতি। আর তাই গণতন্ত্রের শ্রেষ্ঠ উচ্চারণ আজ- ‘যা সঠিক তা প্রতিষ্ঠা পাক, যা বেঠিক তা নির্মূল হোক।’ ২০১৯-১০-১৫
দেশবাসী সহ বিশ্বের সমগ্র বাংলা ভাষাভাষী মানুষকে শারদীয় দুর্গোৎসবের শুভেচ্ছা। ২০১৯-১০-০৪
জন্মাষ্টমীর শুভেচ্ছা ২০১৯-০৮-২৩

previous123456next