[ আমরা সম্মিলিত অনুশীলনের ভিত্তিতে, মানুষ ও মনুষ্যত্বের মুক্তিতে, মানবীয় মর্যাদা প্রতিষ্ঠার মহতী সংগ্রামে- আমাদের আদর্শিক সত্তা ও সমন্বয়ক দিশারী শ্রদ্ধেয় ‘বড়দা (আব্দুর রাজ্জাক মুল্লাহ রাজু শিকদার)’র নির্দেশিত পথই- সংগঠন ও সংগঠন কাঠামোর ক্ষেত্রে মতাদর্শিক দিশা হিসেবে গৃহীত; সেই আলোকেই অত্র প্রকাশনা অনুমোদিত। ]



মেনু

৭ দিনের সংবাদ দুনিয়া

 
আদর্শহীন রাজনীতি দেশ ও মানুষের কল্যাণে আসে নাঃ রাষ্ট্রপতি
১৯-০১-২০১৭

‘লক্ষ্যহীন তরী যেমন কখনও গন্তব্যে পৌঁছাতে পারে না, তেমনি আদর্শহীন রাজনীতিও দেশ ও মানুষের কল্যাণে আসে না।’ ১৯শে জানুয়ারি ২০১৭ খ্রিষ্টাব্দে শহীদ এম মনসুর আলীর জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় রাষ্ট্রপতি এ কথা বলেন।

 

আলোচনা সভায় রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ আরও বলেন “আমি রাজনীতিবিদ ও রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি আহ্বান জানাব, আপনারা ব্যক্তি ও দলের চেয়ে দেশের স্বার্থকে প্রাধান্য দিন। জনগণের স্বার্থকে অগ্রাধিকার দিন। তাহলেই দেশ এগিয়ে যাবে। রাজনীতিতে নীতি-আদর্শের চেয়ে অর্থবিত্ত ও পদ-পদবীর গুরুত্ব বেশী হলে তা রাজনীতিকে কলুষিত করে। গণতন্ত্রের চর্চাকে ব্যাহত করে।”

 

“রাজনীতিতে চড়াই-উৎরাই আছে এবং থাকবে। আর এর মধ্য দিয়েই একজন রাজনীতিবিদকে সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে হয়। নীতি ও আদর্শের প্রতি অবিচল আস্থা রেখে লক্ষ্য অর্জনের মাধ্যমেই একজন রাজনীতিবিদ সাফল্যের পথে এগিয়ে যায়।’

 

এম মনসুর আলীর জীবনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে তিনি বলেন, “ক্ষমতার কাছে থেকেও তিনি ছিলেন নির্মোহ ও নির্লোভ। তিনি ইচ্ছা করলে আরাম-আয়েশে জীবন যাপন করতে পারতেন, বিত্ত-বৈভবের মালিক হতে পারতেন, কিন্তু তিনি তা করেননি। তিনি গণমানুষের জন্য কাজ করেছেন।

 

স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফয়েল আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, শহীদ এম মনসুর আলী স্মৃতি সংসদের সভাপতি নুরুল ইসলাম ঠাণ্ডু প্রমুখ।

 

তথ্য সূত্রঃ

http://bangla.bdnews24.com/bangladesh/article1275219.bdnews