[ আমরা সম্মিলিত অনুশীলনের ভিত্তিতে, মানুষ ও মনুষ্যত্বের মুক্তিতে, মানবীয় মর্যাদা প্রতিষ্ঠার মহতী সংগ্রামে- আমাদের আদর্শিক সত্তা ও সমন্বয়ক দিশারী শ্রদ্ধেয় ‘বড়দা (আব্দুর রাজ্জাক মুল্লাহ রাজু শিকদার)’র নির্দেশিত পথই- সংগঠন ও সংগঠন কাঠামোর ক্ষেত্রে মতাদর্শিক দিশা হিসেবে গৃহীত; সেই আলোকেই অত্র প্রকাশনা অনুমোদিত। ]



মেনু

৭ দিনের সংবাদ দুনিয়া

 
যুক্তরাজ্যর ব্রেক্সিট এর পক্ষে ভোট দেওয়া খুবই বিচক্ষণ সিদ্ধান্তঃ ট্রাম্প
১৭-০১-২০১৭

যুক্তরাজ্যর ইউরোপিয় ইউনিয়ন থেকে বের হওয়ার পক্ষে ভোট দেওয়া ছিল খুবই বিচক্ষণ সিদ্ধান্ত । আরও কয়েকটি দেশের এ রকম বের হয়ে আসা উচিত। ১৬ই জানুয়ারি ২০১৭ খিস্টাব্দে ইউরোপীয় গণমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে আমেরিকার নব নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এ কথা বলেন।

 

এদিকে চরম অনিশ্চয়তার ফলে ব্রিটেনের অর্থনৈতিক ভীত এর মধ্যেই প্রশ্নের মুখে পড়েছে৷ রেটিং এজেন্সি-গুলি ব্রিটেনের অবস্থার আরও অবনতির আশঙ্কা করছে৷

 

ইতিমধ্য অনেক ব্যবসায়ি প্রতিষ্ঠান ব্রিটেনে কার্যকলাপ কমিয়ে আনা অথবা পুরোপুরি ব্যবসা গোটানোর বিষয়ে ভাবনাচিন্তা শুরু করে দিয়েছেন৷ বিশেষ করে যে সব বিদেশি কোম্পানিগুলো ব্রিটেন থেকে ইইউভুক্ত অন্যান্য দেশগুলিতে তাদের কার্যকলাপ চালিয়ে এসেছে৷ আবার পুঁজিবাজারে দরপতনও অব্যাহত রয়েছে৷

 

বর্তমানে সবার মনে একটাই প্রশ্ন৷ গণভোটের রায় মেনে নিয়ে ব্রিটেনের সরকার কত দ্রুত আনুষ্ঠানিকভাবে ইইউ থেকে বিদায়ের সিদ্ধান্ত নেবে? অর্থাৎ ইইউ চুক্তির ‘আর্টিকেল ৫০' অনুযায়ী বিদায়ের ঘোষণা করবে৷ তার পর দুই বছরের মধ্যে বিদায়ের প্রক্রিয়া ও ইইউ-র সঙ্গে ভবিষ্যৎ সম্পর্কের রূপরেখা স্থির করা হবে৷

 

যদি ব্রেক্সিট এর ক্ষেত্রে বিলম্ব হয়, বাকি ২৭টি দেশের সম্মতিতে আলোচনার মেয়াদ আরও বাড়ানো সম্ভব, তবে ইইউ ব্রিটেনের উপর দ্রুত আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত নেবার জন্য জোর দিচ্ছে। যাতে বর্তমান অনিশ্চয়তা যতটা সম্ভব কাটানো যায়৷ কিন্তু ব্রিটেন এ বিষয়ে স্পষ্ট কোনো অবস্থান নিচ্ছে না৷ এমনকি কিছু মহলে প্রশ্ন উঠছে, ব্রিটেন আদৌ এই পদক্ষেপ নেবে কিনা৷ অর্থাৎ গণভোটের রায় উপেক্ষা করে শেষ পর্যন্ত ইইউ-তেই থেকে যাবে কিনা৷ দ্বিতীয়ত আবার গণভোটের সম্ভাবনাও আছে কি না?

 

কিন্তু বার্লিনে- জার্মানি, ফ্রান্স ও ইটালির শীর্ষ নেতারা স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিয়েছেন, ব্রিটেন বিদায়ের আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত ঘোষণা করার আগে সে দেশের সঙ্গে ইইউ-র ভবিষ্যৎ সম্পর্কে কোনো আলোচনাই সম্ভব নয়৷ তাঁরা ব্রিটেনের উদ্দেশ্যে অবিলম্বে এই প্রক্রিয়া শুরু করার কথা বলেছেন৷

 

তথ্য সূত্রঃ

http://www.prothom-alo.com/international/article/1060717/

http://www.dw.com/bn/

http://www.banglatribune.com/foreign/news/98953/

http://www.bbc.com/news/uk-politics-38631832

https://www.afp.com/en/news/15/