[ আমরা সম্মিলিত অনুশীলনের ভিত্তিতে, মানুষ ও মনুষ্যত্বের মুক্তিতে, মানবীয় মর্যাদা প্রতিষ্ঠার মহতী সংগ্রামে- আমাদের আদর্শিক সত্তা ও সমন্বয়ক দিশারী শ্রদ্ধেয় ‘বড়দা (আব্দুর রাজ্জাক মুল্লাহ রাজু শিকদার)’র নির্দেশিত পথই- সংগঠন ও সংগঠন কাঠামোর ক্ষেত্রে মতাদর্শিক দিশা হিসেবে গৃহীত; সেই আলোকেই অত্র প্রকাশনা অনুমোদিত। ]



মেনু

৭ দিনের সংবাদ দুনিয়া

 
ইসির সংলাপে দুই দলের ১১ দফা ও ১৬ দফা প্রস্তাব
২১-০৯-২০১৭

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ-রাজনৈতিক দলের কমিটিতে নারী প্রতিনিধিত্ব রাখার বাধ্যবাধকতা রাখার বিধান বাতিল, নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা পুনর্বহালসহ ১১ দফা আর নির্বাচনকালীন সরকার চাইলেও ঢালাওভাবে সেনা মোতায়েন না করাসহ ১৬টি প্রস্তাব দিয়েছে ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি)।

 

২১শে সেপ্টেম্বর ইসির সংলাপে আলাদাভাবে অংশ নিয়ে দল দুটি এসব প্রস্তাব তুলে ধরে।

 

সকালে ইসির সংলাপে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ দলটির মহাসচিব নূর হোছাইন কাসেমীর নেতৃত্বে ১২ সদস্যের প্রতিনিধি দল সংলাপে অংশ নেয়। তাদের অন্য প্রস্তাবগুলোর মধ্যে আছে নির্বাচনের এক বছর আগে থেকেই রাজনৈতিক দলগুলোর জন্য অবাধ ও সভা-সমাবেশ ও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনার পরিবেশ তৈরিতে ইসির উদ্যোগ নেয়া; ভোটার তালিকা হালনাগাদ করে অবৈধ ভোটার থাকলে তা বাদ দেয়া;অবৈধ ও কালো টাকার মালিকরা নির্বাচনে যেন অংশ নিতে না পারে সে ব্যবস্থা করা; নিরপেক্ষ পর্যবেক্ষক নিয়োগ করা; এক বছর আগে সকল সংস্থা ও কর্মীদের নাম পরিচয় নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে ও গণমাধ্যমে প্রকাশ করা;সুষ্ঠু ভোটের স্বার্থে সেনাবাহিনী নিয়োগ;স্বতন্ত্র প্রর্থীদের নির্বাচনে অংশগ্রহণে উৎসাহিত করতে ভোটারদের সমর্থনসূচক স্বাক্ষর নমিনেশন পেপারের সঙ্গে জমা দেয়ার বাধ্যবাধকতার আইনটি বিলুপ্ত করা; নির্বাচন কমিশনকে নিরপেক্ষভাবে কাজ করা; প্রবাসীদের ভোটাধিকার নিশ্চিত করা; মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া ও নির্বাচনের তারিখের মধ্যে অন্তত ৪০ দিন সময় রাখা।

 

বিকেলে এনপিপির চেয়ারম্যান শেখ ছালাউদ্দিন এর নেতৃত্বে ১১ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল সংলাপে অংশ নেয়। তারা জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেওয়া নিবন্ধিত দলগুলোর প্রতিনিধিদের নিয়ে নির্বাচনকালীন সরকার, সব দলের অংশ গ্রহণে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন নিশ্চিত করা, অনলাইনে মনোনয়নপত্র জমা, প্রবাসীদের ভোটাধিকার দেওয়া, নতুন রাজনৈতিক দল নিবন্ধনের ক্ষেত্রে দলের চেয়ারম্যান ও মহাসচিবের যোগ্যতা যাচাই, নির্বাচনে ইভিএমের ব্যবহার না করার প্রস্তাব করে।

 

দুটি দলের সঙ্গে সংলাপে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা সভাপতিত্ব করেন। অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার এবং ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা সংলাপে উপস্থিত ছিলেন।

 

একাদশ সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে আইন সংস্কার, সীমানা পুনর্নির্ধারণসহ ঘোষিত রোডম্যাপ নিয়ে সংলাপের আয়োজন করে ইসি। গত ৩১ জুলাই সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে সংলাপের মধ্য দিয়ে সংলাপ শুরু করে নির্বাচন কমিশন। পরে ১৬ ও ১৭ আগস্ট অর্ধশত গণমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গে সংলাপ করে তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন পরামর্শ গ্রহণ করে ইসি। ধারাবাহিক সংলাপের অংশ হিসেবে ২৪ আগস্ট থেকে বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোট এর সাথে সংলাপের মধ্যে দিয়ে নিবন্ধিত ৪০টি রাজনৈতিক দলের  সঙ্গে বৈঠক শুরু করে ইসি। এ পর্যন্ত ১৮টি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ শেষ হয়েছে।

 

তথ্য সূত্রঃ

http://ourislam24.com/2017/09/21/

http://www.dhakatimes24.com/2017/09/21/49725/

http://www.bd-pratidin.com/last-page/2017/09/22/266040