[ আমরা সম্মিলিত অনুশীলনের ভিত্তিতে, মানুষ ও মনুষ্যত্বের মুক্তিতে, মানবীয় মর্যাদা প্রতিষ্ঠার মহতী সংগ্রামে- আমাদের আদর্শিক সত্তা ও সমন্বয়ক দিশারী শ্রদ্ধেয় ‘বড়দা (আব্দুর রাজ্জাক মুল্লাহ রাজু শিকদার)’র নির্দেশিত পথই- সংগঠন ও সংগঠন কাঠামোর ক্ষেত্রে মতাদর্শিক দিশা হিসেবে গৃহীত; সেই আলোকেই অত্র প্রকাশনা অনুমোদিত। ]



মেনু

৭ দিনের সংবাদ দুনিয়া

 
ট্রম্পের দ্বিতীয় নির্বাহী আদেশের বিরুদ্ধে অবস্থান নিল বেশ কয়েকটি অঙ্গরাজ্য
১০-০৩-২০১৭

ইরান ও ইয়েমেনসহ ছয়টি মুসলিম প্রধান দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জারি করা নির্বাহী আদেশের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে বেশ কয়েকটি অঙ্গরাজ্য।

 

স্থানীয় সময় গত বুধবার ট্রাম্পের ওই নির্বাহী আদেশের বিরুদ্ধে হাওয়াই অঙ্গরাজ্যের হনলুলুর একটি আদালতে মামলা করার একদিন পর বৃহস্পতিবার দেশটির ওয়াশিংটন, ম্যাসাচুসেটস, অরেগন ও নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের পক্ষ থেকে ওই নির্বাহী আদেশের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

 

ট্রাম্পের এ নির্বাহী আদেশটিকে বৈষম্যমূলক উল্লেখ করে ওয়াশিংটন অঙ্গরাজ্যের অ্যাটর্নি জেনারেল বব ফার্গুসন বলেন, প্রথম নিষেধাজ্ঞার অনেক বিষয় পুনর্বহাল করতেই ট্রাম্প নতুন করে এ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন। এই আদেশকে আইনগতভাবে রুখে দিতে বিচারকদের প্রতি আহ্বানও জানান ফার্গুসন।

 

ট্রাম্পের দ্বিতীয় দফা নির্বাহী আদেশ আগামী ১৬ মার্চ থেকে কার্যকর হওয়ার কথা রয়েছে। আর হাওয়াই অঙ্গরাজ্যের করা মামলার শুনানির জন্য আগামী ১৫ মার্চ তারিখ নির্ধারণ করেছেন ফেডারেল আদালত।

 

গত সোমবার জারি করা ট্রাম্পের নতুন ওই নির্বাহী আদেশে সিরিয়া, ইরান, সোমালিয়া, লিবিয়া, সুদান ও ইয়েমেনের নাগরিকদের ১২০ দিনের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। তবে ওই ছয় দেশের নাগরিক যাঁরা এরই মধ্যে ভিসা পেয়েছেন, তাঁদের ভ্রমণে কোনো বাঁধা দেওয়া হবে না বলেও আদেশে উল্লেখ করা হয়। প্রথম আদেশে যে সাতটি দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছিল, দ্বিতীয় দফায় তার মধ্য থেকে ইরাককে বাদ রাখা হয়েছে।

 

এর আগে সাত মুসলিম প্রধান দেশের নাগরিকদের ওপর প্রথম দফায় ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন ট্রাম্প। সে সময় ওই আদেশ স্থগিত করেন ওয়াশিংটনের সিয়াটল আদালত।

 

সূত্রঃ বিবিসি, এএফপি, রয়টার্স